Type Here to Get Search Results !

ভারতের ১৫তম রাষ্ট্রপতি হলেন দ্রৌপদী মুর্মু

ভারতের ১৫তম রাষ্ট্রপতি হলেন দ্রৌপদী মুর্মু

Draupadi Murmu


    প্রথম আদিবাসী মহিলা হিসেবে দেশের সর্বোচ্চ সাংবিধানিক পদে পৌঁছতে পারেন দ্রৌপদী। ওড়িশার ময়ূরভঞ্জ জেলার সাঁওতাল সম্প্রদায়ের একটি দরিদ্র আদিবাসী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন তিনি। এখনও পর্যন্ত দেশে কোনো আদিবাসী মহিলা প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্রপতি হননি। যদিও কেআর নারায়ণন ও রামনাথ কোবিন্দের রূপে দেশ পেয়েছে ২ জন দলিত রাষ্ট্রপতি। 


ব্যক্তিগত জীবন

     দ্রৌপদী মুর্মু ১৯৫৮ সালের ২০ জুন ওড়িশার ময়ুরভঞ্জ জেলার বাইদাপোসি গ্রামে বিরাঞ্চি নারায়ণ টুডুর কাছে একটি সাঁওতালি উপজাতি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা এবং দাদা উভয়েই পঞ্চায়েতি রাজ ব্যবস্থার অধীনে গ্রামের প্রধান ছিলেন।

     দ্রৌপদী মুর্মু শ্যাম চরণ মুর্মুকে বিয়ে করেছিলেন। এই দম্পতির দুটি ছেলে ছিল যারা উভয়ই মারা গেছে এবং একটি মেয়ে আছে।


কর্মজীবন

শিক্ষকতা পেশা

     রাজ্য রাজনীতিতে আসার আগে মুর্মু একজন স্কুল শিক্ষক হিসাবে শুরু করেছিলেন। তিনি শ্রী অরবিন্দ ইন্টিগ্রাল এডুকেশন অ্যান্ড রিসার্চ, রায়রঙ্গপুর এর একজন সহকারী অধ্যাপক এবং ওড়িশা সরকারের সেচ বিভাগে জুনিয়র সহকারী হিসেবে কাজ করেছেন।


রাজ্য রাজনীতি

     মুর্মু ১৯৯৭ সালে ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগদান করেন এবং রায়রঙ্গপুর নগর পঞ্চায়েতের কাউন্সিলর নির্বাচিত হন। তিনি ভারতীয় জনতা পার্টি তফসিলি উপজাতি মোর্চার জাতীয় সহ-সভাপতি হিসেবেও কাজ করেছেন।

     ওড়িশায় ভারতীয় জনতা পার্টি এবং বিজু জনতা দলের জোট সরকারের সময়, তিনি ৬ মার্চ, ২০০০ থেকে ৬ আগস্ট, ২০০২ পর্যন্ত বাণিজ্য ও পরিবহন এবং ৬ আগস্ট, ২০০২ থেকে ১৬ মে ২০০৪ পর্যন্ত মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ উন্নয়নের স্বাধীন দায়িত্বের প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। তিনি ওড়িশার প্রাক্তন মন্ত্রী এবং ২০০৪ এবং ২০০৪ সালে রায়রঙ্গপুর বিধানসভা কেন্দ্রের একজন বিধায়ক। ২০০৭ সালে ওড়িশা বিধানসভা দ্বারা তিনি সেরা বিধায়কের জন্য নীলকণ্ঠ পুরস্কারে ভূষিত হন।


গভর্নরশিপ

     তিনি ছিলেন ঝাড়খণ্ডের প্রথম মহিলা রাজ্যপাল। তিনি ওডিশা থেকে প্রথম মহিলা আদিবাসী নেত্রী যিনি ভারতীয় রাজ্যের গভর্নর হিসেবে নিযুক্ত হন।


২০২২ রাষ্ট্রপতি নির্বাচনী প্রচারণা

     ২০২২ সালের জুনে, বিজেপি পরের মাসে ভারতের রাষ্ট্রপতি পদে অনুষ্ঠিতব্য ২০২২ রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে জাতীয় গণতান্ত্রিক জোটের প্রার্থী হিসাবে মুর্মুকে মনোনীত করেছিল।


২০২২ সালের রাষ্ট্রপতি হওয়া

     গত সোমবার ‘ক্রস ভোট’ (Cross Voting) মধ্যেই রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ভোটগ্রহণ পর্ব শেষ হয়। প্রায় ৯৯ শতাংশ সাংসদ ও বিধায়ক ভোট দিয়েছেন বলে নির্বাচন কমিশনের তরফে জানানো হয়। ২৪ জুলাই শেষ হবে বর্তমান রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের কার্যকালের মেয়াদ। পরের দিন অর্থাৎ ২৫ জুলাই শপথ নেবেন দেশের নতুন রাষ্ট্রপতি। 


দ্রৌপদী মুর্মুর রাষ্ট্রপতি হওয়ায় মমতার টুইট

মমতার বক্তব্য রাষ্ট্রপতি মুর্মুর প্রতি


      বিরোধীদের প্রার্থী হিসেবে লড়াই করেছিলেন যশবন্ত সিনহা। তাঁকে প্রার্থী করার পেছনে বড় ভূমিকা ছিল তৃণমূল নেত্রীর। কিন্তু প্রচার পর্বের মধ্যেই মমতা মন্তব্য করেন, "আগে জানলে দ্রৌপদী মুর্মুকে সমর্থন করার কথা ভাবতাম"। বিরোধীদের সঙ্গে আলোচনা না করেই দ্রৌপদীকে প্রার্থী করা হয়েছে। 

Post a Comment

0 Comments
* Please Don't Spam Here. All the Comments are Reviewed by Admin.

Top Post Ad

Below Post Ad

LightBlog

gad

close